পাকিস্তানে ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর বিমান!

429

সপ্তাহ দুয়েক আগে এক গভীর রাতে ইসরায়েলি মন্ত্রীদের বহনকারী একটি বিশেষ বিমান পাকিস্তানে অবতরণ করেছিল। বিষয়টি ইসরায়েলের এক সংবাদিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ফাঁস করলে তা অস্বীকার করেছিল পাক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে এবার বিমানটির পাইলটের বরাত দিয়ে মিডল ইস্ট আই জানিয়েছে, ২৪ অক্টোবর রাতে ইসরায়েলের ‘গুরুত্বপূর্ণ তিন ব্যক্তি’ পাকিস্তান সফরে এসেছিল।

খবরে বলা হয়, ২৪ অক্টোবর রাতে পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডির বিমান ঘাঁটি নূর খান এয়ারবেজে বিশেষ বিমানটি অবতরণ করে। পাশেই থাকা একটি মাইক্রোবাসে ইসরায়েলি ‘গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা’ কোথাও বেরিয়ে যায়। কয়েক ঘণ্টা পর তাদের নিয়ে আবারো বিমানটি ফের ইসরায়েলের উদ্দেশে ফিরে যায়।

ইসরায়েলি কর্তাদের এই ভ্রমণ নিয়ে এত বেশি আলোচনার কারণ, পাকিস্তানের সঙ্গে ইহুদিবাদী রাষ্ট্রটির কোনো কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই।

israel plane

ঘটনার পরদিন ইসরায়েলি পত্রিকা হারেৎজ’র সম্পাদক অভি সচারফ টুইটবার্তায় ফ্লাইটের ম্যাপসহ পোস্ট করেন। তবে ইসলামাবাদের কর্তারা একে ষড়যন্ত্র হিসেবেই দেখছেন।

অভি সচারফ টুইটে উল্লেখ করেন, ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী ওই দিন ওমান সফর শেষ পাকিস্তানে যান।

পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধূরী বলেছেন, ‘ওটা ছিল সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিমান, ইসরায়েলের নয়। আমিরাতের প্রতিনিধিরা সেদিন ইসলামাবাদ ভ্রমণে এসেছিলেন।’

দেশটির সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আহসান ইকবাল বলেছেন, ‘সরকারের উচিত দ্রুতই বিষয়টি জনগণের কাছে প্রকাশ করা।’ সেই সাথে পাকিস্তান সবধরনের ‘কুচক্রীর হাত’ থেকে নিরাপদ বলেও মন্তব্য করছেন আহসান ইকবাল।

তবে উড়োজাহাড়ের গতিপথ অনুসরণকারী ওয়েবসাইট ফ্লাইটরাডার২৪ বলছে, ২৩ তারিখ তেল আবিব থেকে বিজ জেটের ওই বিমানটি গ্রিনিচ টাইম ২৪ তারিখ রাত ৮টায় আম্মানে পৌঁছে। এর ঠিক দশ ঘণ্টা পর বিমানটিকে পাকিস্তানের ইসলামাবাদে আকাশে ফের দেখা যায়।

ওয়েবসাইটটি বলছে, ‘বিমানটি তেল আবিব থেকে আম্মান হয়ে পাকিস্তানে অবতরণ করে কয়েক ঘণ্টা পর আবারো তেল আবিবে পৌঁছে।’

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক কূটনীতিক যিনি ইসারায়েলে দীর্ঘদিন কাজ করেছেন। তিনি বলেন, ‘ইসারায়েল পাকিস্তানে যেতে পারে। কারণ সম্প্রতি তারা আরব ও মুসলিম দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে কাজ করছে।’

তাছাড়া সৌদি আরব কৌশলগত করণেই ইসরায়েলের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক বজায় রাখতে পকিস্তানকে বলতে পারে। করণ উপসাগরীয় অঞ্চলে তাদের আধিপত্য বজায় রাখতে ইসরায়েলকে ভালো বন্ধু হিসেবে বেছে নিয়েছে।

আর পাকিস্তানের অর্থনৈতিক ক্রান্তিলগ্নে সৌদি আরব ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার সহায়তা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এজন্য পাকিস্তান সৌদির প্রতি কৃতজ্ঞ হয়ে ইসরায়েলের সঙ্গে গোপন সম্পর্ক রাখতে পারে বলেও মনে করেন মার্কিন এই কূটনীতিক।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

WP Twitter Auto Publish Powered By : XYZScripts.com