পরিচালকের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ কঙ্গনার

84

শক্তিমান অভিনেতা নানা পাটেকারের বিরুদ্ধে আনা যৌন হেনস্তা নিয়ে যখন বলিউডে নানা আলোচনা–সমালোচনা হচ্ছে, ঠিক তখন বছর পাঁচেক আগের আরেকটি ঘটনা সামনে চলে এসেছে। এবার অভিযোগ করা হচ্ছে চিত্র পরিচালক বিকাশ বহেলের বিরুদ্ধে। হিন্দি ছবি ‘চিলার পার্টি’, ‘কুইন’, ‘শান্দার’ আর ‘সুপার থার্টি’র তিনি পরিচালক। প্রযোজনা করেছেন আরও অসংখ্য ছবি। তাঁর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ নতুন নয়, কিন্তু এর কোনোটার ব্যাপারেই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এ কারণে বিকাশ বহেলের সাহস ক্রমেই বেড়েছে। এবার তাঁর কুকর্মগুলোকে সামনে নিয়ে এসেছেন বলিউড তারকা কঙ্গনা রনৌতসহ আরও কয়েকজন।

হাফপোস্ট ইন্ডিয়াকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কঙ্গনা রনৌত বলেছেন, ‘বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে আমাদের দেখা হতো। আমরা একে অপরকে আলিঙ্গন করে অভিবাদন জানাতাম। কিন্তু এই সুযোগে বিকাশ তাঁর মুখ আমার ঘাড়ে গুঁজে দেন। আমাকে বেশ জোরে চেপে ধরতেন আর আমার চুলের ঘ্রাণ নিতেন। ওই সময় তিনি বলেছেন, “তোমার শরীরের ঘ্রাণ আমার ভালো লাগে কঙ্গনা।” ওই অবস্থা থেকে নিজেকে মুক্ত করতে আমাকে একটু বেগ পেতে হতো।’

দিকে ‘কুইন’ ছবির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ফ্যান্টম ফিল্মসের একজন সাবেক কর্মীকে বিকাশ বহেলের যৌন হেনস্তা করার ঘটনা সামনে এনেছেন কঙ্গনা রনৌত। এই প্রতিষ্ঠানের অন্যতম অংশীদার ছিলেন বিকাশ বহেল। এই অভিযোগকে সত্যি বলেছেন প্রতিষ্ঠানটির অন্যতম অংশীদার বিক্রমাদিত্য মোতওয়ানে। প্রতিষ্ঠানটির অন্য দুজন অংশীদার অনুরাগ কাশ্যপ ও মধু মন্টেনা। তবে সম্প্রতি ফ্যান্টম ফিল্মস ভেঙে গেছে। এই প্রতিষ্ঠান থেকে শেষ তৈরি হয়েছে ‘সুপার থার্টি’। এই ছবিতে অভিনয় করেছেন হৃতিক রোশন। পরিচালনা করেছেন বিকাশ বহেল। ছবিটি ২০১৯ সালের ২৫ জানুয়ারি মুক্তি পাওয়ার কথা আছে।

হাফপোস্ট ইন্ডিয়াকে বিক্রমাদিত্য মোতওয়ানে বলেন, ‘গত বছর পর্যন্ত এই ঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানতাম না। অনুরাগ কাশ্যপ আমাকে বিষয়টি জানান। এরপর মধু, আমি আর অনুরাগ ওই নারীর সঙ্গে বসেছি। তিনি আমাদের কাছে পুরো ঘটনা বলেছেন। ঘটনাটি শোনা আমাদের জন্য ভীষণ কঠিন ছিল, ভয়ংকরও বলতে পারেন।’এর আগে ভুক্তভোগী এই নারী বলেছেন, ২০১৫ সালের অক্টোবরে তিনি অনুরাগ কাশ্যপের কাছে গিয়েছিলেন। কিন্তু তখন প্রতিষ্ঠান কিংবা এর সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কারও কাছ থেকে কোনো সহযোগিতা পাননি। এই প্রতিষ্ঠান থেকে চাকরি ছেড়ে দেওয়ার আগে পর্যন্ত বিকাশ বহেল তাঁকে যৌন হেনস্তা করেছেন। পরে তা জানতে পারেন কঙ্গনা রনৌত। ‘কুইন’ ছবির এই তারকা বললেন, ‘মেয়েটির কথা আমি বিশ্বাস করেছি। “কুইন” ছবির শুটিংয়ের সময় বিকাশের বিয়ে হয়। এরপরও তাঁর স্বভাবের কোনো পরিবর্তন হয়নি। নিত্যনতুন সঙ্গীর সঙ্গে তাঁকে দেখা যায়। আমি মেয়েটির পাশে দাঁড়িয়েছিলাম, ভেবেছিলাম বিষয়টা সামনে আসবে। কিন্তু ওই সময় ঘটনাটিকে সচেতনভাবে ধামাচাপা দেওয়া হয়। যেহেতু মেয়েটির পক্ষ নিয়ে আমি কথা বলেছি, তাই হরিয়ানার স্বর্ণপদক বিজয়ী এক নারীকে নিয়ে যে চলচ্চিত্র তৈরির কথা ভাবা হয়েছিল, তা থেকে আমাকে বাদ দেওয়া হয়।’

বিকাশ বহেলের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে? বিক্রমাদিত্য মোতওয়ানে বলেন, ‘বিকাশকে নতুন কোনো ছবির প্রযোজনা কিংবা পরিচালনা করতে দেওয়া হয়নি। তাকে নতুন করে আর কোনো কাগজে স্বাক্ষর করার অনুমতি দেওয়া হয়নি। তাকে আমরা চিকিৎসার জন্য রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টারে পাঠাতে চেয়েছি। এ বিষয়ে তার সঙ্গে কথা বলেছি। তখন চিকিৎসার ব্যাপারে সে রাজি হয়েছিল।’

বিক্রমাদিত্য মোতওয়ানে আরও বলেন, ‘ওই নারীর কাছ থেকে সবকিছু জানার পর আমরা ফ্যান্টম ফিল্মসের পক্ষ থেকে তাকে একটি চিঠি দিয়েছি। ওই চিঠির মাধ্যমে আমরা দুঃখ প্রকাশ করেছি, তার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছি। আমরা বিশ্বাস করি, বিকাশ বহেল অবশ্যই যৌন অপরাধী। ও একটা মেয়ের বিশ্বাস ভেঙেছে, তাঁর জীবন তছনছ করে দিয়েছে

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

WP Twitter Auto Publish Powered By : XYZScripts.com