চট্টগ্রাম কাস্টমসে জালিয়াতি : ভুয়া আইডি ব্যবহার করে ৩৭৭৭ চালান খালাস

102

গত বছরের জুনে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে কয়েকটি কনটেইনারে পণ্য আমদানি করে ঢাকার জারা এন্টারপ্রাইজ। সন্দেহজনক পণ্য হওয়ায় খালাস না করতে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজকে নির্দেশ দেয় শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। চার মাস পর কায়িক পরীক্ষা করতে গিয়ে শুল্ক গোয়েন্দারা দেখেন চালানটি খালাস হয়ে গেছে। মুহিবুল ইসলাম নামে চট্টগ্রাম কাস্টমসের এক কর্মকর্তার আইডি ব্যবহার করে অ্যাসাইকুডা ওয়ার্ল্ডের মাধ্যমে চালানটি খালাস করা হয়। যদিও এ কর্মকর্তা তিন বছর আগেই অবসরে গেছেন।

শুধু জারা এন্টারপ্রাইজ নয়, গত দুই বছরে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের সাবেক দুই কর্মকর্তার ইউজার আইডি ব্যবহার করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ৩ হাজার ৭৭৭টি চালান অবৈধভাবে খালাস করা হয়েছে বলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের তদন্তে উঠে এসেছে। এতে সরকার বিপুল অংকের রাজস্ব বঞ্চিত হয়েছে বলে মনে করছেন তদন্ত কর্মকর্তারা। সরকারি রাজস্ব সুরক্ষা ও কাস্টমসের ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ন রাখতে এ অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণে এনবিআর চেয়ারম্যানের কাছে তদন্ত প্রতিবেদনটি জমা দিয়েছেন তারা।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. শহিদুল ইসলাম বণিক বার্তাকে বলেন, তদন্তে চমকপদ ও উদ্বেগজনক তথ্য পাওয়া গেছে। প্রাথমিক তদন্তে ভুয়া ইউজার আইডি ব্যবহার করে ঘোষণাবহির্ভূত উচ্চ শুল্কহার, আমদানিনীতি পরিপন্থী, জাতীয় ও সামাজিক নিরাপত্তার জন্য হুমকি এমন পণ্য খালাসের প্রমাণ পাওয়া গেছে। দুটি আইডির বিরুদ্ধে বিপুলসংখ্যক পণ্য খালাসের তথ্য এনবিআরে জমা দেয়া হয়েছে। তবে এর সঙ্গে জড়িতদের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য সংগ্রহে আরো অনুসন্ধান করতে হবে। শুল্ক গোয়েন্দা অনুসন্ধান অব্যাহত রেখেছে।

এদিকে এ জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে গতকাল রাতে রাজধানীর রমনা থানায় এমআর ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল ও চাকলাদার সার্ভিস নামে দুটি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করেছে শুল্ক গোয়েন্দা। মামলার পরপরই কাকরাইল থেকে এমআর ট্রেড ইন্টারন্যাশনালের স্বত্বাধিকারী মিজানুর রহমান চাকলাদারকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে সংস্থাটি।

অ্যাসাইকুডা ওয়ার্ল্ড সিস্টেমের মাধ্যমে পণ্য খালাস করতে কাস্টম হাউজের সব পর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দিষ্ট ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দেয়া হয়। একজনের আইডি ও পাসওয়ার্ড অন্যজন ব্যবহারের কোনো সুযোগ নেই। কোনো কর্মকর্তা কোনো কাস্টম হাউজ থেকে বদলি হলে বা বিদায় নিলে সংশ্লিষ্ট ইউজার আইডি প্রোগ্রামার কর্তৃক বন্ধ করা হয়। ফলে বিদায় নেয়ার পর ওই ইউজার আইডি থেকে পণ্য খালাসের কোনো সুযোগ নেই। তবে প্রযুক্তির অপব্যবহার করে দীর্ঘদিন ধরেই এ ধরনের কাজ করে আসছেন চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের কিছু কর্মকর্তা।

মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য খালাসের বেশকিছু অভিযোগ তদন্ত করতে গিয়ে কাস্টম হাউজের সাবেক দুই কর্মকর্তার আইডি ব্যবহার করে ৩ হাজার ৭৭৭টি চালান অবৈধভাবে খালাসের প্রমাণ পান শুল্ক গোয়েন্দারা। তারা বলছেন, এ প্রক্রিয়ায় উচ্চ শুল্কের পণ্যে ন্যূনতম শুল্ক পরিশোধের মাধ্যমে বিপুল অংকের রাজস্ব ফাঁকি ও অবৈধ পণ্য আমদানি করা হয়েছে।

শুল্ক গোয়েন্দার তদন্ত অনুযায়ী, ঢাকার গুলশান এলাকার জারা এন্টারপ্রাইজ নামে একটি প্রতিষ্ঠান মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আমদানি করছে বলে খবর পায় শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তর। এর পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ১৯ এপ্রিল প্রতিষ্ঠানটির একটি চালান খালাস না করতে নির্দেশ দেয় শুল্ক গোয়েন্দার চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কার্যালয়। শুল্ক জালিয়াতির সংবাদ থাকায় ২৫ জুন চালানটি স্থগিত করতে এনবিআরের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা (সিআইসি) কাস্টমসকে নির্দেশ দেয়। এরপর চট্টগ্রাম কাস্টমস অ্যাসাইকুডা ওয়ার্ল্ড সিস্টেমে শুল্ক গোয়েন্দার নামের বিপরীতে পণ্য চালানটির বিল অব এন্ট্রি লক করে দেয়। পরবর্তী সময়ে ৫ সেপ্টেম্বর চালানটির কায়িক পরীক্ষা শেষ করে খালাস করতে সংশ্লিষ্ট সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টকে চিঠি দেয় শুল্ক গোয়েন্দা। তবে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট সাড়া না দেয়ায় অনুসন্ধানে নামে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

অনুসন্ধানে জানা যায়, জারা এন্টারপ্রাইজের চালানটি বিশেষ কায়দায় খালাস হয়ে গেছে। ২৬ সেপ্টেম্বর বিকাল ৪টা ৫৮ মিনিটে অ্যাসাইকুডা ওয়ার্ল্ড সিস্টেমে রাজস্ব কর্মকর্তা মুহিবুল ইসলামের আইডি ব্যবহার করে চালানটি আনলক করা হয়। পরে বিল অব এন্ট্রির বিপরীতে এক্সিট নোট ইস্যু করে চালানটি খালাস নেয়া হয়, যা কাস্টম হাউজ বা শুল্ক গোয়েন্দা জানে না। চালান খালাস হওয়ার পর ২৭ সেপ্টেম্বর একই আইডি ব্যবহার করে সিস্টেমে চালানটি আবার লক করে দেয়া হয়। এভাবে ২০১৭ সালের ২১ নভেম্বর থেকে ২০১৮ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মুহিবুল ইসলামের আইডি থেকে ১১৬টি চালান খালাস করা হয় বলে তদন্তে উঠে আসে। যদিও মুহিবুল ইসলাম অনুসন্ধানাধীন সময়ের তিন বছর আগে ২০১৫ সালে সরকারি চাকরি থেকে অবসর নেন।

মুহিবুল ইসলামের মতোই চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজে ফজলুল হক নামের আরেকজন সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তার আইডি ব্যবহার করে ৩ হাজার ৬৬১টি চালান অবৈধভাবে খালাসের প্রমাণ পেয়েছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। ফজলুল হক ২০১৫ সালের আগস্টে চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা দক্ষিণ কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেটে বদলি হন। তিন বছর ধরে তিনি ঢাকায় সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োজিত। ২০১৬ সালের অক্টোবর থেকে ২০১৯ সালের ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত তার আইডি থেকে এসব চালান খালাসের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয়েছে বলে তদন্ত কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। মুহিবুল ইসলাম ও ফজলুল হকের মতো এমন আরো আইডি ব্যবহার করে কাস্টম হাউজ থেকে অবৈধভাবে পণ্য খালাস হচ্ছে বলে তদন্ত প্রতিবেদনে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

এ জালিয়াতির বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজের কমিশনার এ কে এম নুরুজ্জামান তালুকদার বণিক বার্তাকে বলেন, প্রতিবেদনটি যেভাবে এসেছে বাস্তব চিত্র আসলে সে রকম নয়। পণ্য খালাসে ইউজার আইডি অপব্যবহারের অভিযোগ হয়তো সত্য। কোনো কর্মকর্তা অবসরে গেলে বা বদলি হলে তার আইডি প্রোগ্রামের মাধ্যমে বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা। চট্টগ্রাম কাস্টম হাউজে এর আগে ২৯১টি ফাইল গায়েব হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। আমি দায়িত্ব নেয়ার পর সেগুলোর বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এ বিষয়ে আমরা তদন্ত করে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেব।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

WP Twitter Auto Publish Powered By : XYZScripts.com